সাংবাদিক খান মেহেদীর করোনা কালীন কবিতা

46

করোনা তুমি শিখিয়ে দিলে কে আপন কে পর,মায়ের চাইতে নেই তো আপন বাকি সব পর

সকাল বেলা হঠাৎ করে হাচিঁ দিলাম যখন,

পাশে থেকে বউটা ভয়ে লাফিয়ে উঠলো তখন।

দুপুর বেলা হঠাৎ করে গায়ে এলো জ্বর,

বন্ধুরা সব চিৎকার করে বলল এখন সর।

মাথা ব্যাথা নিয়েই যখন চলে আসলাম বাড়ি,

বউটা দেখি বাচ্চা নিয়ে চলছে বাবার বাড়ি।

বললাম তারে কোথায় গো যাও কথা বলো’ না,

করোনা’তে ধরেছে তোমায় তাও কি বোঝ’ না।

সন্ধাবেলা গলা ব্যাথায় ভয় পেয়ে যায় আমি,

মনে হলো সত্যিই আমি করোনার আসামি।

ডাক্তার যখন রক্ত নিল পুলিশ আসলো তখন,

লাল ফিতা সব বেধে দিল বাড়ি লকডাউন।

দুরে গেল আশে পাশে আপন যারা ছিল,

করোনা ভাইরাস এখন আমায় মানুষ চেনালো।

বাড়িতে শুধু মা রয়েছে সবাই গেছে চলে,

মাঝে মাঝে কিছু মানুষ মোবাইলে কথা বলে।

মহাবিপদে পাশে শুধু পরে রইলো মা,

তাইতো বলি মা’গো তোমার নেইকো তুলনা।

আস্তে আস্তে জ্বর তো গেলই গেল সর্দি কাশি,

এখন আমি ভালোই আছি নেইতো কোন হাচিঁ।

হাসতে হাসতে বউটা এসে কামড় দিয়ে জীভ,

বলল আমায় দেখো তোমার রিপোর্ট নেগেটিভ।

শুধু শুধুই কষ্ট দিলাম ক্ষমা করো মোরে,

শত বিপদেও যাব না আমি কভু তোমায় ছেড়ে।

করোনা তুমি শিখিয়ে দিলে কে আপন কে পর,

মায়ের চাইতে নেই তো আপন বাকি সব পর।