স্বাস্থ্যমন্ত্রীর ইঙ্গিত, করোনার জন্য চলমান ছুটির মেয়াদ বাড়ছে

করোনাভাইরাস মহামারী সামলাতে সরকার ঘোষিত সাধারণ ছুটি বাড়ানো হবে কিনা তা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রোববার (২৯ মার্চ) দুপুরে আইইডিসিআরের অনলাইন সংবাদ সম্মেলনে সংযুক্ত হয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

গত ২৩ মার্চ করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে জরুরি ভিত্তিতে সরকারি-বেসরকারি সকল অফিস বন্ধের ঘোষণা দেয় সরকার। গত ২৬ মার্চ থেকে এ সাধারণ ছুটি কার্যকর হয়েছে। যা চলবে আগামী ৪ এপ্রিল পর্যন্ত। মানুষের বাইরে যাওয়া বন্ধ করতে এ ছুটি ঘোষণা করা হলেও ছুটি ঘোষণার পর পরই রাজধানীর বাসিন্দারা দল বেঁধে গ্রামে চলে যায়। ফলে সারাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দেয়। তেমনি ছুটি শেষে মানুষ ফের দল বেঁধে ঢাকায় ফিরবেন।

তাই এ ছুটি বাড়ানো হবে কিনা বা এ ক্ষেত্রে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কোনো নির্দেশনা আছে কিনা জানতে চাইলে সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি তারা পর্যবেক্ষণ করবেন। সংবাদকর্মী ও দেশবাসীও পর্যবেক্ষণ করবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও বিষয়টি পর্যবেক্ষণ করবেন। ছুটির এই সময়ের মধ্যে যদি গোটা বিশ্ব এবং দেশের অবস্থা একটি সহনশীল পর্যায়ে চলে আসে, তাহলে এক ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। যদি না আসে তাহলে অন্য চিন্তা করা হবে।

তিনি আরো বলেন, ছুটির এ সময়ের মধ্যে যদি দেশে অবস্থা স্বাভাবিক না হয়, তাহলে প্রধানমন্ত্রী পরিস্থিতি দেখে সিদ্ধান্ত নেবেন। তিনিই ঠিক করবেন ছুটি বাড়ানো হবে কি না।

জাহিদ মালেক আরো বলেন, ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে, সবাইকে বাসায় নিরাপদে থাকার জন্য। কিন্তু মানুষ হুড়মুড় করে গ্রামের বাড়িতে ছুটি কাটাতে গেলেন। এটি মোটেও উচিত হয়নি। কারণ এটি একটি সংক্রামক ভাইরাস। বাস-ট্রেনে ভিড় করে বাড়ি ফেরার ফলে গোটা দেশে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ার পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ছুটি শেষে সবাইকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশিত সতর্কতা মেনে ঢাকায় ফিরতে হবে। এ ক্ষেত্রে সকলের ব্যক্তিগত সুরক্ষা, একে অন্যের থেকে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখা, শিষ্টাচার মেনে ফেরা উচিত।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৪৮ জন কভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া গেছে। এই রোগে মারা গেছেন ৫ জন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here